স্যুটকেসের মধ্যে বন্ধু

admin

আজ মঙ্গলবার সিএনএনের খবরে জানা যায়, কিশোর যে এলাকার বাসিন্দা, সেখানকার বিল্ডিং অ্যাসোসিয়েশন করোনার বিস্তার রোধে বাইরের কারও প্রবেশ নিষিদ্ধ করেছে।

ম্যাঙ্গালোর পুলিশের কর্মকর্তা এন বিশ্বনাথ বলেন, কিশোর ঘরে থেকে একঘেয়েমি ও অবসাদে ভুগছিল। তাই সে স্যুটকেসের ভেতর লুকিয়ে বন্ধুকে হাউজিং কমপ্লেক্সে ঢোকানোর চেষ্টা করে। বাসিন্দাদের সন্দেহ হয়। তারা তাকে ধরে ফেলে।

ওই হাউজিং কমপ্লেক্সের বাসিন্দারা পুলিশে খবর দেয়। বিশ্বনাথ জানান, দুই কিশোরকে নিকটবর্তী থানায় নিয়ে সতর্ক করা হয়। শিক্ষার্থী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে আইনি কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

সরকারি হিসাবে কর্ণানাটকে ২৪৭ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে।

ভারতে গত মাস থেকে লকডাউন জারি করা হয়েছে। অনেক আবাসিক অ্যাসোসিয়েশন সতর্কতা হিসেবে অন্য এলাকার লোকদের প্রবেশের ওপর বিধিনিষেধ জারি করেছে।

Next Post

ড্রোন দিয়ে লকডাউনের নজরদারি

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে ড্রোন দিয়ে লকডাউনের নজরদারি শুরু করেছে রাজ্য সরকার। এই ড্রোনই রাজ্যের অলিগলিতে উড়ে ছবি তুলে খবর দিচ্ছে কোথায় লকডাউনের মধ্যে জটলা হচ্ছে, জমায়েত হচ্ছে, লকডাউন ভেঙে মানুষ পথে নেমেছে। এর আগে ভারতের অন্য রাজ্য, যেমন: গুজরাট, বেঙ্গালুরু, কেরালায় লকডাউন দেখতে আকাশে ওড়ানো হয় ড্রোন। পশ্চিমবঙ্গে লকডাউন চললেও মাঝেমধ্যে […]